নিয়মিত এই ২টি অভ্যাস মেনে চললে গরিব থেকে ধনী হতে বেশি সময় লাগবে না। ধনী হতে চাইলে মনে রাখুন এই ২টি অভ্যাস।

মানুষ অভ্যাসের দাস। সাধারন ভাবেই মানুষ বিভিন্ন খারাপ এবং ভালো অভ্যাসে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। ভালবাস যেমন মানুষকে ভাল দেখে নিয়ে যায় তেমনি খারাপ অভ্যাসগুলো মানুষকে খারাপের দিকে নিয়ে যায়। মানুষকে অভ্যাসের দাস বলা হয় কারণ যখন কেউ কোন ভাষায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ে তখন সে না চাইতেও দৈনন্দিন জীবনে এগুলো করে থাকে। অভ্যাস খারাপ হোক কিংবা ভালো হোক তা থেকে ফিরে আসা খুবই কষ্টকর। তবে খারাপ অভ্যাসগুলো থেকে পরিত্রান পাওয়া আরো বেশী কষ্টকর। একজন মানুষের দৈনন্দিন জীবনের সাধারণ অভ্যাস গুলো দেখলেই বুঝা যায় আসলে মানুষটি কি রকম।

আমাদের দেশে সাধারণত একটি সমস্যা লক্ষ্য করা যায় যে, প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার পরেও কর্মজীবনের সাকসেসফুল হতে পারে না। আর তখনি বিভিন্ন হতাশায় ভোগে থাকে। আর এই কর্মজীবনের সাকসেসফুল না হওয়ার পেছনে বিভিন্ন বদ অভ্যাস জড়িত থাকে। আগেই বলেছি মানুষ অভ্যাসের দাস। তাই মানুষ এ ধরনের অভ্যাস গুলোর পেছনে দাসত্ব বরণ করে থাকে প্রতিনিয়তিই। কিছু কিছু ভালোবাসা যেমন মানুষকে তার কর্ম জীবনে সাকসেসফুল করে তুলে, তেমনি কিছু কিছু খারাপ অভ্যাস মানুষের কর্মজীবনকে ব্যর্থতায় ভরে দেয়।

বন্ধুরা আজকের এই ভিডিওটি আপনার জীবনের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ একটি ভিডিওতে চলেছে। জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপে এই ভিডিওটি আপনার কাজে লাগবে। আপনার চিন্তা ভাবনা ও জীবনের উপর ফোকাস যদি সঠিক হয়ে থাকে তবে জীবনের প্রত্যেকটি অবস্থাতেই এই ভিডিওটি আপনাদের সামনে এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে। তা আপনার পড়াশোনার ক্ষেত্রে হোক চাকরির ক্ষেত্রে হোক কিংবা ব্যবসা।আপনার জীবনে যে দুইটি অভ্যাস মেনে চললে সহজেই জীবনকে পরিবর্তন করে দেবে। চলুন দেখে নেয়া যাক ওই অভ্যাস গুলো কি কি।

১) আফসোস না করা। আমরা জীবনের যেকোন সিচুয়েশনে আফসোস করি। যেমন আমার টাকা নেই তাই আমি ব্যবসা করতে পারছিনা, বাইক নেই তাই কোন মেয়েকে ইমপ্রেস করতে পারছিনা, কিন্তু হতে পারে যে আপনাদের এই ছোট ছোট অভাব যার জন্য আপনি নিজের জীবনকে দোষ দিচ্ছেন, সেই সব ছোটখাটো অভাবে হয়তো একদিন আপনার লাইফের সবথেকে বড় সাফল্যের কারণ হয়ে উঠবে। আমাদের উচিত আমরা যে অবস্থানেই আছি সেখান থেকেই শুরু করা।

কিন্তু আমাদের একটি বদঅভ্যাস হচ্ছে আমরা কোন কিছু ছোট থেকে শুরু করতে চাই না। আমরা চাই একবারেই কোটিপতি হয়ে যেতে। পৃথিবীতে যত ধনী ব্যক্তি রয়েছে তারা কেউই হঠাৎ করে ধনী হয়ে যায়নি। তারা তাদের পরিশ্রমের মাধ্যমে আস্তে আস্তে ছোট থেকে বড় হয়েছি। অতএব আমাদের প্রত্যেকেরই উচিত যে আমরা যে অবস্থায় আছি সেই অবস্থাতেই ছোট হোক বা বড় হোক কাজ শুরু করা যাক সৎ উদ্দেশ্য এবং পরিশ্রম থাকলে অবশ্যই যেকোনো কাজে সাকসেসফুল হওয়া যায়।

২) অ্যাকশন নেওয়া। বেশিরভাগ মানুষ লাইফে ব্যর্থ হয়ে যায়।কারণ 100 জনের মধ্যে 90 জন মানুষের লাইফে অনেক চিন্তা-ভাবনা করার পরও কখনোই একশন নেয়না ।যে কাজটি সে করতে যায় সেই কাজটি শুরু করে না। যেমন এই গল্পে যদি চাকরি না পাওয়ার পর সব আশা ছেড়ে গ্রামে চলে যেত তাহলে সাফল্যের কোনো সুযোগ ছিল না তার। সফলতা পেয়েছে কারণ নিজের ব্যর্থতা ভেঙে পড়ে হাল ছেড়ে না দিয়ে ইমিডিয়েট একসান নিয়েছে।

পরবর্তী কাজটি শুরু করার জন্য তাই আমাদের কেউ কোনো ব্যর্থতায় বা অভাবে আফসোস না করা ছেড়ে লাইকে পজেটিভ নজরে দেখে ইমিডিয়েট একসান নিতে হবে পরবর্তী কাজের দিকে। কারণ বাড়িতে বসে আফসোস করে আর চিন্তা করে কখনোই আবদুল কালাম স্যারের মত একজন বড় মানুষ হওয়া সম্ভব নয় । আমাদের আরো বড় একটি বদঅভ্যাস হচ্ছে আজ নয় কাল করব। কিন্তু এই কাল কোনদিনও আসেনা। তাই আমাদের কাজের প্রতি একশনটি আজকে নিতে হয়। এই অভ্যাস দুটি লাইফ এ প্রয়োগ করে দেখুন অবশ্যই আপনার জীবনে সাকসেসফুল হতে পারবেন।

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

এছাড়াও পড়ুন

বরের মুখে এমন কথা শুনে অ’বাক মে’য়ের বাবা সাথে সকল আত্মীয়-স্বজন

আপনারা সবাই জানেন যে বড়লোকদের আজকাল বিয়ের কাজ কর্ম বড়ই যাক জমকের সাথে হয়। কেবল …

Leave a Reply