এক ধাক্কায় আরও কমল সোনার দাম! ধস রুপোতেও

গত বছর করো’না লকডাউন, চিন-আমেরিকা ট্রে’ড ওয়ার ইত্যাদির জেরে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছিল সোনার দাম। তবে, এবছর থেকে পরিস্থিতি কিছুটা হলেও ঠান্ডা হচ্ছে। ফলে বিনিয়োগের নিরাপ’দ ক্ষেত্র হিসাবে সোনার সেই তুমুল চাহিদাটা আর নেই।

মুম্বই-এর মাল্টি-কমোডিটি এক্সচেঞ্জ (এমসিএক্স) গোল্ড ফিউচার ০.৪% পড়ে গিয়ে প্রতি ১০ গ্রাম ৪৪,৭৬৮ টাকায় নেমে এসেছে। রুপোর ক্ষেত্রে কমেছে আরও বেশি। এদিন রুপোর দামও ০.৮ শতাংশ নেমে কেজি প্রতি ৬৭,৪৭৩ টাকায় নেমে দাঁড়িয়েছে। ফলে, দেশের বাজারে সোনার দাম যে কমছে ও আগামী দিনেও সামান্য কমা’র সম্ভাবনা রয়েছে তা স্পষ্ট।

গত বছর করো’না লকডাউন, চিন-আমেরিকা ট্রে’ড ওয়ার ইত্যাদির জেরে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছিল সোনার দাম। তবে, এবছর থেকে পরিস্থিতি কিছুটা হলেও ঠান্ডা হচ্ছে। ফলে বিনিয়োগের নিরাপ’দ ক্ষেত্র হিসাবে সোনার সেই তুমুল চাহিদাটা আর নেই। আন্তর্জাতিক বজারে এদিন সোনার দামের বেশি ওঠাপড়া হয়নি। আউন্স-প্রতি ১,৭১১ ডলারেই দাঁড়িয়েছিল সোনার দাম।

আন্তর্জাতিক বাজারের এই প্রভাব পড়েছে খুচরো সোনার বাজারেও। ২০২০ সালের অগস্ট থেকে দাম প্রায় ১১ হাজার টাকা কমেছে। বুধবার কলকাতায় ২২ ক্যারাট সোনার দাম ছিল প্রতি ১০ গ্রামে ৪৪,৬৪০ টাকা। একইভাবে রুপোর দাম কমে দাঁড়ায় ৬৭,৯০০ টাকা।

গত বছর সোনার দ্রুত দাম বৃ’দ্ধিতে নাজেহাল হয়েছিলেন খুচরো ক্রেতারা। এছাড়া গত বছরের শেষে ও চলতি বছরের শুরুতে বিয়ের মর’সুমেও প্রভাব ফেলছিল দাম। তবে এবার দাম কিছুটা কমায় স্বস্তিতে সোনা বিক্রেতারা।

শহরের এক সোনার দোকানের বিক্রেতা জানালেন, গত বছর একে করো’না, তার উপর দাম, বিক্রিতে অনেকটাই প্রভাব পড়েছিল। এবার বিয়ের মর’সুম থাকতে থাকতে দামটা কমছে। বিক্রিবাটাও চা’ঙ্গা হচ্ছে।

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

এছাড়াও পড়ুন

১২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে আস্ত বাড়ি!

নিজস্ব প্রতিবেদন: মাত্র ১২ টাকা দিয়ে যদি আস্ত একটা বাড়ি কেনা যায় তাহলে কেমন হয়? …

Leave a Reply